সর্বশেষ সংবাদ
ঢাকা, সেপ্টেম্বর ২৮, ২০২২, ১৩ আশ্বিন ১৪২৯
ICT News | Online Newspaper of Bangladesh |
রবিবার ● ৩০ সেপ্টেম্বর ২০১২
প্রথম পাতা » আইসিটি আপডেট » বাংলাদেশ সাবমেরিন ক্যাবলসের দরপতন
প্রথম পাতা » আইসিটি আপডেট » বাংলাদেশ সাবমেরিন ক্যাবলসের দরপতন
৫১৫ বার পঠিত
রবিবার ● ৩০ সেপ্টেম্বর ২০১২
Decrease Font Size Increase Font Size Email this Article Print Friendly Version

বাংলাদেশ সাবমেরিন ক্যাবলসের দরপতন

Submarine Cable Company Limitedঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) গত সপ্তাহে দরপতনের তালিকায় ছিল টেলিযোগাযোগ খাতের নতুন প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ সাবমেরিন ক্যাবল কোম্পানি লিমিটেড (বিএসসিসিএল)। কোম্পাটির লভ্যাংশ ঘোষণার পরিপ্রেক্ষিতে এর রেকর্ড ডেট থাকায় দর সমন্বয় হয় ২৪ সেপ্টেম্বর। এর প্রভাবে গত সপ্তাহে কোম্পানিটির শেয়ারের ৮.৪৫ শতাংশ দর কমেছে। সপ্তাহজুড়ে ১৪৫ কোটি ৬৩ লাখ ১৩ হাজার টাকার শেয়ার হাতবদল হয়েছে। দৈনিক গড় লেনদেনের পরিমাণ ছিল ২৯ কোটি ১২ লাখ ৬২ হাজার ৬০০ টাকা।

জানা যায়, বাংলাদেশ সাবমেরিন ক্যাবলের পরিচালনা পর্ষদ ২০ শতাংশ নগদ ও ১০ শতাংশ বোনাস শেয়ার লভ্যাংশ সুপারিশ করেছে। সর্বশেষ নিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন অনুসারে কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৭ টাকা ৮৫ পয়সা এবং শেয়ারপ্রতি সম্পদ মূল্য ২৮ দশমিক শূন্য ৭ টাকা।
এদিকে সপ্তাহের শেষ কার্যদিবসে শেয়ারটির দর কমেছে ৪ দশমিক শূন্য ৯ শতাংশ বা ৬ টাকা ৭০ পয়সা। সর্বশেষ লেনদেন হয় ১৫৭ টাকা ১০ পয়সায়। দিনভর এর দর ১৬৯ থেকে ১৫৫ টাকায় ওঠানামা করে। দিনশেষে এ শেয়ারের দর হয় ১৫৭ টাকা ১০ পয়সা। এদিন ৩ হাজার ৮৩৩ বারে ১৮ লাখ ২৮ হাজার শেয়ার লেনদেন হয়, যার বাজার মূল্য ২৯ কোটি ৪৫ লাখ ২৮ হাজার টাকা।
সর্বশেষ প্রকাশিত তৃতীয় প্রান্তিকের অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন অনুসারে কোম্পানিটির কর-পরবর্তী নিট মুনাফা হয় ৩১ কোটি ৫৫ লাখ ৫০ হাজার টাকা ও শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) ৩ টাকা ৬১ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে কর-পরবর্তী নিট মুনাফা হয় ১৭ কোটি ২৯ লাখ ৬০ হাজার টাকা ও ইপিএস ১ টাকা ৯৮ পয়সা। এ বছরের ১৪ জুন থেকে শেয়ারবাজারে এর লেনদেন শুরু হয়।

বাংলাদেশ টেলিগ্রাফ অ্যান্ড টেলিফোন বোর্ডের (বিটিটিবি) সাবমেরিন ক্যাবল প্রজেক্টের মাধ্যমে ২০০৮ সালের জুলাইয়ে বিএসসিসিএল পাবলিক লিমিটেড কোম্পানি হিসেবে আত্মপ্রকাশ করে। ২০০৮-০৯ আর্থিকবছরের জন্য কোম্পানিটি ১০ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ দেয়। ২০০৮-০৯ আর্থিকবছরে ১১ কোটি ৫৫ লাখ টাকা নিট মুনাফা করে। এ ছাড়া ২০০৯-১০ আর্থিকবছরে কোম্পানিটি শেয়ারহোল্ডারদের জন্য ৩০ শতাংশ বোনাস লভ্যাংশ ঘোষণা করে। বিএসসিসিএলের বর্তমান ক্যাপাসিটি হচ্ছে প্রতি সেকেন্ডে ৪৪ দশমিক ৬০ গিগাবাইট (৪৪ দশমিক ৬ জিবিপিএস)। বর্তমানে ক্যাপাসিটির মাত্র ২৫ শতাংশ ব্যবহার করা হচ্ছে।
‘এন’ ক্যাটাগরির কোম্পানিটি চলতি বছর শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত হয়। বর্তমানে এর অনুমোদিত মূলধন ১ হাজার কোটি ও পরিশোধিত মূলধন ১১৮ কোটি ৫০ লাখ টাকা। এর মোট ১১ কোটি ৮৫ লাখ ৯ হাজার ১৭০টি শেয়ার রয়েছে। প্রতিটির অভিহিত দর ১০ টাকা ও মার্কেট লট ১০০ শেয়ারে। কোম্পানিটির রিজার্ভে রয়েছে ৬৬ কোটি ২৬ লাখ ৩০ হাজার টাকা। মোট শেয়ারের ৭৩ দশমিক ৮৪ শতাংশ সরকার, ৬ দশমিক ১৬ শতাংশ প্রতিষ্ঠান এবং ২০ শতাংশ রয়েছে সাধারণ বিনিয়োগকারীর হাতে।



পাঠকের মন্তব্য

(মতামতের জন্যে সম্পাদক দায়ী নয়।)
প্রথম দিনেই ই-ক্যাব নির্বাচনের মনোনয়ন ফরম কিনলেন ১৭ জন
ই-কমার্স খাতকে এগিয়ে নিতে নতুন উদ্যোগ ‘দ্য চেঞ্জ মেকারস ২০২২’
উইন্ডোজ ১১ অপারেটিং সিস্টেম অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপ সমর্থন করবে
বাংলাদেশে গুজব ছড়াতে ও সাইবার হামলায় একটি রাষ্ট্র প্রাতিষ্ঠানিকভাবে অর্থ বিনিয়োগ করছে- টিএমজিবির ভার্চুয়াল সেমিনারে আইসিটি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক
শুক্র গ্রহে রয়েছে প্রাণ !
আগামী বছর থেকেই ফাইভ-জি স্মার্টফোনের বাজার আবার ঘুরে দাঁড়াবে
অনলাইনে ইনফো-সরকার ৩য় পর্যায় প্রকল্পের স্টীয়ারিং কমিটির সভা
করোনা ভাইরাস প্রাদুর্ভাবে ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে বিপিও শিল্প খাত
করোনার ঝুঁকি নিয়ে সকল প্রকার ওয়াটার ফিল্টার পাইকারি ও খুচরা মুল্যে ঢাকা সহ সারা বাংলাদেশে হোম ডেলিভারি করছি- আজিজুল ইসলাম
কোভিড-১৯ মোকাবিলায় ৪০ লক্ষ টাকা অনুদান দিচ্ছে শাওমি বাংলাদেশ